তামিলনাড়ুর নীলগিরি পর্বতমালার ছোট্ট শহরের নাম উটি। এই জাগাটি সুন্দর বাঙলো এবং এই জায়গার মাঝামাঝি এই শহরের বাজার, এলো মেলো রাস্তা পাহাড়ের গায়ে গায়ে যেটিকে ভ্রমণ প্রেমী রা খুব পছন্দ করে।  এই জাগাটি পরিবার, হানিমুন আর একটু আরামদায়ক সপ্তাহের শেষে ঘুরে আসার জন্য একটি সুন্দর জায়গা। বিশেষ করে হানিমুন জুটিদের জন্য বিশেষ ভাবে প্রখ্যাত। এখানে ট্রয় ট্রেন চড়ার সময় জানালা দিয়ে মনোরম দৃশ্য দেখার এক আলাদাই অভিজ্ঞতা। এই ট্রয় ট্রেন হলো  UNESCO World Heritage site। এখানে 'ডোডাবেটা টি' কারখানা আপনাদের কে সতেজ চায়ের সুগন্ধ প্রদান করে। এখানে সুন্দর সুন্দর গ্রাম আছে যেটি আপনি পায়ে হেটে উদ্ঘাটন করতে পারেন। এখানে বোটিং এরও ব্যাপস্থা আছে সুদর্শন সিনারির সাথে আপনি বোটিং উপভোগ করতে পারবেন। অন্য সুস্বাদু চকলেট এর জন্য প্রখ্যাত।  এখানে বাজারে আপনি খুব অল্প টাকায় বাড়ির বানানো চকলেট পেয়ে যাবেন।(travel guide) 
Ooty_travel_tamilnadu
Ooty Elkhill


উটি ভ্রমণ করার জন্য বিশেষ কিছু জায়গার তথ্য 

  • গোলাপ ফুলের বাগান(Rose Garden) - একটা বোরো অংশের ভ্রমণ প্রেমী রা এখানে এসে থাকেন এই গোলাপের বাগান দর্শনের জন্য,  প্রায় ১৭২৫৬টি গোলাপ ফুলের গাছ এখানে অবস্থিত এবং এখানে প্রায় ১৯১৯ প্রকারের গোলাপ ফহুলের চাষ আছে, যার জন্য ভ্রমণ প্রেমীদের জন্য এই জায়গা খুব আকর্ষণীয়।
  • উটি চায়ের কারখানা(Ooty tea factory) - এই কারখানাটি শহর থেকে ৪কিলোমিটার দূরে অবস্থিত। ১৮৩৯ মিটার উচ্চতায় আপনি আপনার চা সম্পর্কে জ্ঞান পাড়িয়ে নিতে পারেন। 
  • ডোডাপেট্টা পার্ক(Doddapetta park) - এই জায়গাটি সাধারণত বড়ো পর্বতমালা।  এর চূড়া থেকে আপনি সুন্দর চারিদিকের সুন্দর সিনারি আপনি উপভোগ করতে পারবেন। এখন থেকে আপনি পূর্ব ও পশ্চিম ঘাট দেখতে পারবেন। নীলিগিরি পর্বত মালা থেকে খুব শান্ত এবং স্নেহময় সূর্যোদয় এবগং সূর্যাস্ত দেখতে পারবেন, এর সাথে ওখানকার সুন্দর প্রকৃতির দৃশ আপনি উপভোগ করতে পারবেন। এখানে তামিলনাড়ু ট্যুরিজম ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন(Tamil Nadu Tourism Development Corporation) থেকে টেলিস্কোপ নিয়ে দূরের চামুন্ডি হিলস এর সৌন্দর্য দেখতে পারবেন। 
  • বোটানিক্যাল গার্ডেন(Btanical Garden) - এই জায়গা টি ছড়িয়ে আছে প্রায় ২২ হেক্টর পর্যন্ত, এই গার্ডেন ফুলের ঘর আর ৬৫০ গাছের ঘর হিসাবে বিখ্যাত। এখানে আপনি এসে টোডাস আদিবাসীদের( সঙ্গে দেখা করার সুযোগ পেতে পারেন, এটি হলো উটির মূল আদিবাসী। 
  • মূদুমালায় জাতীয় উদ্যান(Mudumalai National Park) - এই জায়গাটি সাধারণত শহর থেকে ২ কিলোমিটার বাইরে, এই উদ্যানটি বাঘ সংরক্ষণ করার জন্য বিখ্যাত। এখানে এসে কিছু সময় আপনি মায়ার জলপ্রপাত দেখতে যেতে পারেন। এটি স্বর্গ বন্য জীবজন্তুদের জন্য, এখানে এসে দেখা পাবেন হরিণ, ময়ূর, ধূসর জঙ্গল পাখি এবং বাইরে থেকে আসা জলে থাকা পাখি। 
  •  উটি লেক(Ooty Lake) - এই জাগাতি হলো সবথেকে আকর্ষণীয় জায়গা।  এই জায়গাটি ছড়িয়ে আছে ৬৫ একর জায়গা নিয়ে। এই হ্রদটি ইউকালিপ্টাস গাছ দ্বারা সজ্জিত। সুন্দর স্নাপ্শট্ আর আশ্চর্য্য  দৃশ্যের জন্য এই হ্রদটি প্রখ্যাত। এখানে এসে আপনি বোট, প্যাডেল বোট এবং অন্যানো মোটর দ্বারা চালিত বোট গুলি ওখান থেকে পেয়ে যাবেন। 
ooty_lake_boating
source: wikipedia.org



উটি-তে আসার জন্য সেরা সময় 

এই  জায়গাটি বিশেষত পাহাড়ের জন্য বিখ্যাত, উটির আবহাওয়া এতটাই সুন্দর যে আপনি বছরের যেকোনো সময় আস্তে পারেন। এখানে বিভিন্ন ঋতুতে বিভিন্ন আকর্ষন রয়েছে আপনার জন্য। নিচে আরো বিস্তারিত ভাবে বর্ণনা দেওয়া হয়েছে।

  • গ্রীষ্ম (Summer) - এই গ্রীষ্মকালে আপনারা মার্চ থেকে জুন এর মধ্যে এখানে আস্তে পারেন।  এই সময় এই জায়গার আবহাওয়া ভীষণ মনোরম, কিছু কিছু সময় এখানকার আবহাওয়া একটু গরম হয় কিন্তু  ২৪°C থেকে বেশি হয়না। এই সময় সব থেকে বেশি ভ্রমণ প্রেমীরা এসে থাকেন, এবং এই সময় সব থেকে বেশ একটিভিটি আপনি করতে পারবেন। এই সময় আপনি বেশি সংখক ফল এবং ফুলের দর্শন করতে পারবেন। গ্রীষ্মে এখানে তাপমাত্রা ১৫°C-২০°C পর্যন্ত হয়ে থাকে। গরমের মরসুমে আপনি ওখানকার স্থানীয় উৎসব(festival) এবং কিছু সাংষ্কৃতিক অনুষ্টানের মজা নিতে পারবেন। 
  • বর্ষা(Monsoon) - বর্ষার মরসুম শুরু হয় জুলাই থেকে এবং এটি সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত চলতে থাকে।  এই সময় আপনি অনেক জায়গায় জেট পারবেন না , অনেক এক্টিভিটিও বন্ধ থাকে, তাপমাত্রা অনেকটাই কমে যাই।  কিন্তু এই সময় পুরো পাহাড়ে সবুজে ভোরে যাই। এই সময়ই আপনি ভীষণ পরিমানে কুয়াশাও দেখতে পারবেন। 
  • শীত(Winter) - শীত কালের মরসুম শুরু হয় অক্টোবর থেকে এবং এটি ফেব্রুয়ারী মাস পর্যন্ত চলতে থাকে। এইসময়টি হলো বিশেষ সময় যখন আপনি এখনকার সৌন্দর্য্য পুরোপুরি ভাবে উপভোগ করতে পারবেন, এই সময় আবহাওয়া খুব মনোরম থাকে। এই সময়টিতেই বেশিরভাগ জুটি এখানে হনিমুন করতে আসেন। এইসময় কিছু কিছু দিন দারুন ভাবে তাপমাত্রা কোনো থাকে বিশেষ করে রাতে, এখানকার তাপমাত্রা মাঝে মাঝে ৫°C এর থেকেও কমে যেতে পারে। জানুয়ারী থেকে ফেব্রুয়ারী মাসের মধ্যে সব থেকে বেশি ঠান্ডা থাকে। 

Ooty_tea_garden
source: flickr.com


এখানে আসবেন কি করে?

  • প্লেনে করে(By Air) - এখানে সব থেকে কাছের এরপর হচ্ছে কোয়েম্বাটুর(Coimbatore) আপনি যদি কলকাতা থেকে আসেন তাহলে আপনি কলকাতা থেকে কোয়েম্বাটুর এর টিকিট কাটতে পারেন নাহলে ক্লকটাত থেকে ব্যাঙ্গালোর এর টিকেট কাটতে পারেন।  এই দুই জায়গা থেকে আপনি বাস পেয়ে যাবেন আপনার গন্তব্যস্থল পর্যন্ত পৌঁছানোর। কোয়েম্বাটোর থেকে উটির দূরত্ব হলো ১০০ কিলোমিটার এবং বেঙ্গালুরু থেকে উটির দূরত্ব হলো ২৯৫ কিলোমিটার। 
  • ট্রেনে করে(By Train) - ট্রেনে করে আস্তে হলে আপনি কলকাতা থেকে কোয়েম্বাটুর বা চেন্নাই বা মৈসুর এর টিকিট করতে পারে ওখানে নেমে আপনি ট্রেনে করে মাদুরাই স্টেইন(Madurai Station)-এ আস্তে হবে তারপর ওখান থেকে আপনি ক্যাব(cab) বা বাস পেয়ে যাবেন। অথবা আপনি মৈসুর বা কোয়েম্বাটোর থেকে সরাসরি বাস পেয়ে যাবেন উটির জন্য। 
ooty_hill_station_india
source: wallpaperflare.com